২০১৮ সালের ঐতিহাসিক আবিষ্কারগুলো

প্রত্নতত্ত্ব সংক্রান্ত গবেষণা ও আবিষ্কারের ক্ষেত্রে ২০১৮ সাল অত্যন্ত ঘটনাবহুল এবং ইতিহাসের অনেক অজানা অধ্যায় উন্মোচনের বছর ছিল। গ্রিক সাহিত্যের ট্রোজান যুদ্ধের বন্দীদের দ্বারা নির্মিত শহরের খোঁজ কিংবা মায়া সভ্যতার নতুন আরো অবকাঠামো থেকে শুরু করে এশিয়ায় প্রায় ২,০০,০০০ বছরের পুরনো মানব ফসিলের সন্ধান, সবমিলিয়ে ২০১৮ সালে প্রত্নতত্ত্বের আশ্চর্য ঘটনাগুলো নিয়ে সংক্ষেপে সাজানো হয়েছে আজকের লেখা।

ট্রোজান যুদ্ধের বন্দীদের নির্মিত হারিয়ে যাওয়া তেনেয়া শহরের প্রথম নিদর্শন গ্রিসে আবিষ্কৃত
গ্রিক সাহিত্য ও উপকথার ট্রোজান যুদ্ধে গ্রিকদের কাছে পরাজিত হয়ে ধ্বংস হয় ট্রয় নগরী এবং এই যুদ্ধের বন্দীদের দ্বারা নির্মিত হয় তেনেয়া নগরী। প্রায় ৩,০০০ বছর পর দক্ষিণ গ্রিসের ছোট একটি গ্রামে প্রত্নতত্ত্ববিদরা খুঁজে পেয়েছেন এই শহরের অস্তিত্বের প্রথম কোনো নিদর্শন।

ট্রোজান যুদ্ধবন্দীদের দ্বারা নির্মিত প্রাচীন শহর;
প্রাচীন একটি রাস্তার সূত্র ধরে গবেষকরা খুঁজে পেয়েছেন একটি সমাধিক্ষেত্র এবং সেখানে দুইজন পুরুষ, পাঁচজন মহিলা ও দুই শিশুর দেহবাশেষ পাওয়া গিয়েছে। তাছাড়া সমাধিক্ষেত্রে মানব হাড়ের পাশাপাশি আরও পাওয়া গিয়েছে স্বর্ণ ও রুপার মুদ্রাসহ বিভিন্ন মূল্যবান দ্রব্যাদি। হারিয়ে যাওয়া তেনেয়া শহরের বিভিন্ন অবকাঠামোর প্রথম এই নিদর্শন প্রত্নতত্ত্ববিদদের জন্য ট্রোজান যুদ্ধ সংশ্লিষ্ট গবেষণায় নতুন দ্বার খুলে দিয়েছে।

কিছু প্রিয় খাবারের সবচেয়ে পুরনো উৎস
বর্তমান পৃথিবীতে জনপ্রিয় খাবারের ছোট তালিকায় খুব সহজেই জায়গা করে নেবে বিয়ার কিংবা পনিরের মতো উপাদান, সাথে যোগ হতে পারে অলিভ অয়েলও। আজকের দিনে জনপ্রিয় হলেও প্রাচীন সভ্যতায়ও ছিল এগুলোর সরব উপস্থিতি, যা সত্যিই অবাক করার মতো। প্রত্নতত্ত্ববিদরা এ বছর খুঁজে পেয়েছেন হাজার বছরের পুরনো কিছু নমুনা, খাবারের প্রাচীন উৎস সন্ধানের ক্ষেত্রে যা যোগ করেছে নতুন মাত্রা।

প্রায় ২০ বছর পূর্বে গবেষকরা সিসিলিতে খুঁজে পেয়েছিলেন মাটির কলসির মতো একটি পাত্র। চলতি বছরের এই পাত্র থেকে প্রত্নতত্ত্ববিদরা খুঁজে পেয়েছে অলিভ অয়েলের নমুনা, যা প্রায় খ্রিষ্টপূর্ব ২০০০ সালের! নতুন তথ্য থেকে পাওয়া তথ্যে আরও যোগ হয়েছে যে, ইসরাইল ও গ্রিসে পাওয়া নমুনার চেয়ে সিসিলির এই অলিভ অয়েল আরও পুরনো এবং সম্ভবত ব্রোঞ্জ যুগের শুরুর দিকের।

৩,৩০০ বছর পুরনো পনিরের টুকরো;
দীর্ঘদিন বালির নিচে চাপা থাকার পর ২০১০ সালে পুনরায় আবিষ্কৃত হয় প্রাচীন মিশরের পথামেসের সমাধিক্ষেত্র। এই সমাধিক্ষেত্রের একটি ভাঙা পাত্রে পাওয়া গিয়েছিল একধরনের কঠিন ও সাদা রঙের বস্তু। কিন্তু তখনও কেউ বুঝতে পারেনি আসলে ঠিক কী খুঁজে পেয়েছেন তারা। তবে তা রসায়নবিদদের হাতে যাওয়ার পর উন্মোচিত হয় রহস্য। খুঁজে পাওয়া অংশটি ছিল পনিরের একটি টুকরো, যা প্রায় ৩,৩০০ বছরের পুরনো।

বর্তমানের বিয়ারের সাথে আমাদের পূর্বপুরুষদের তৈরি করা বিয়ারের বিস্তর পার্থক্য। কিন্তু আজকের বিয়ার প্রেমীদের সাথে প্রাচীন বিয়ার প্রেমীদের তফাৎ আর কতটুকুই বা হতে পারে! ইসরাইলের একটি গুহায় প্রত্নতত্ত্ববিদরা খুঁজে পেয়েছেন বিয়ার তৈরি করার একটি জায়গা বা ক্ষেত্র, যা প্রায় ১৩,০০০ বছর পুরনো। মজার ব্যাপার হচ্ছে, গবেষকরা ধারণা করছেন যে, প্রাচীন মানুষেরা হয়তো শস্য ফলানো শুরু করেছিল খাবারের প্রাথমিক উৎসের জন্য নয়, বিয়ার তৈরি করতে!

ইসরাইলের প্রাচীন গির্জায় যিশুখ্রিস্টের দুর্লভ এবং সবচেয়ে প্রাচীন ছবি
ইসরাইলের নেগেভ মরুভূমির ধ্বংসপ্রাপ্ত শিভতা শহরের একটি গির্জার দেয়ালে পাওয়া গিয়েছে যিশুখ্রিস্টের একটি পোরট্রেট, যা প্রায় ১,৫০০ বছরের পুরনো দুর্লভ একটি ছবি।

যিশুখ্রিস্টের দুর্লভ ছবি
প্রায় ঝাপসা হয়ে আসা ছবিটি হয়তো যিশুর ব্যাপ্টিজমের সময়ে আঁকা এবং ছবির যিশুর সাথে প্রথাগত পশ্চিমা ছবির যিশুর মধ্যে বিস্তর পার্থক্য রয়েছে। সাধারণত যিশুর প্রতিকৃতিতে দেখা যায় মাথায় লম্বা চুল ও মুখে দাড়ি, তবে দুর্লভ এই দেয়াল চিত্রের যিশুকে চিত্রায়িত করা হয়েছে ছোট কোঁকড়ানো চুল এবং কোনো দাড়ি ছাড়াই।

৮ বছরের শিশু উদ্ধার করেছে ভাইকিং যুগের পূর্বের তরবারি
সুইডেনের ৮ বছর বয়সী শিশু সাগা ভ্যানসেক ভিডোস্তার্ন লেকে খুঁজে পেয়েছে পুরনো ধাতব কাঠামোর মতো কিছু একটা। পরবর্তী গবেষণায় জানা যায়, তা ছিল অতি প্রাচীন একটি তরবারি। জোনকোপিন্স ল্যান্স জাদুঘরের গবেষকদের মতে, তরবারিটি কমপক্ষে ১,০০০ বছরের পুরনো এবং সম্ভবত ৫ম বা ৬ষ্ঠ শতক সময়কালের। তাহলে তরবারিটি হয়তো ভাইকিং যুগের চেয়ে শ’খানেক বছর পূর্বের!

ভাইকিং যুগের পূর্বের তরবারি
জাদুঘর সংশ্লিষ্ট মাইকেল নর্ডস্টম বলেছেন, কেন তরবারিটি সেখানে ছিল, আমরা এখনও জানি না। একই জায়গায় জাদুঘর কর্তৃপক্ষ আরও অনুসন্ধান করার পর আরও একটি ঐতিহাসিক জিনিস খুঁজে পান, যা তরবারিটির সময়কালের। যদিও নিশ্চিত নয়, তবে হতে পারে লেকের ঐ অংশটি হয়তো কোনো নরবলির স্থান ছিল।

আফ্রিকার বাইরে সবচেয়ে পুরনো মানব ফসিল
ইসরাইলের মাউন্ট কারমেলের মিসলিয়া গুহায় একদল আন্তর্জাতিক গবেষক দল খুঁজে পেয়েছেন মানুষের ঊর্ধ্ব চোয়ালের ফসিল। চলতি বছরের জানুয়ারিতে গবেষক দলটি প্রকাশ করেন চমকে দেওয়ার মতো তথ্য। ইসরাইলে পাওয়া মানুষের এই ফসিল প্রায় ১,৭৫,০০০ থেকে ২,০০,০০০ বছরের পুরনো! অর্থাৎ, আফ্রিকার বাইরে পাওয়া মানব ফসিলের মধ্যে সবচেয়ে প্রাচীন এটি।

আফ্রিকার বাইরে পাওয়া সবচেয়ে পুরনো মানব ফসিল;
নতুন এই আবিষ্কারের পূর্বে আফ্রিকার বাইরে পাওয়া সবচেয়ে পুরনো মানব ফসিলের বয়স ছিল ৯০,০০০ থেকে ১,২০,০০০ বছরের মধ্যে। নতুন আবিষ্কৃত এই ফসিল, পূর্বের চেয়ে কমপক্ষে ৫০,০০০ বছর পুরনো হবে। যা থেকে গবেষকরা অনুমান করছেন যে, পূর্বের প্রতিষ্ঠিত ধারণার চেয়ে আরও আগে মানুষ আফ্রিকার বাইরে পা রেখেছিল। শুধু তাই নয়, গবেষণায় প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী মনে করা হচ্ছে যে, প্রাচীন মানুষের বিভিন্ন ভিন্ন গোত্রের মধ্যে একটা লম্বা সময় ধরে সম্ভাব্য মেলামেশা ও যোগাযোগ থাকতে পারে অর্থাৎ সেখানে সাংস্কৃতিক ও শারীরিক গঠনগত পরিবর্তনের যথেষ্ট সুযোগ ছিল।

দুর্ঘটনা থেকে নতুন আরও ৫০টি নাজকা লাইন
নাজকা লাইন হলো, ইনকা সভ্যতার পূর্বে নাজকা সভ্যতার মানুষের দ্বারা ভূমিতে খোদাই করা পেরুর দক্ষিণে মরু অঞ্চলের প্রায় ২,০০০ বছরের পুরনো রহস্যময় চিত্রলেখা বা প্রতীক। এই নাজকা লাইনগুলো ইউনেস্কো ঘোষিত বিশ্বের অন্যতম প্রাচীন ঐতিহ্য। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত এই বছর এক ট্রাক ড্রাইভার ভুল করে নাজকা লাইনগুলোর মধ্য দিয়ে গাড়ি চালিয়ে দেওয়ায়, প্রাচীন এই ঐতিহ্য অপূরণীয় ক্ষতির সম্মুখীন হয়। কিন্তু এই দুর্ঘটনা খুলে দিয়েছে গবেষণার নতুন দ্বার। এপ্রিলে ক্ষতিগ্রস্ত অঞ্চলে গবেষকরা ড্রোন দিয়ে কাজ করতে গিয়ে খুঁজে পেয়েছেন আরও নতুন ৫০টি চিত্রলেখা, যা সাধারণত মানুষের খালি চোখে দেখা যায় না।

নতুন আবিষ্কৃত নাজকা লাইন;
নতুন চিত্রলেখা বা প্রতীকগুলোর মধ্যে কোনোটির বয়স হয়তো একবারে নাজকা সভ্যতার সূচনালগ্নের সমান। নাজকা লাইনের বেশিরভাগই অবশ্য জ্যামিতিক আকৃতির, কিছু প্রাণী ও গাছের আকৃতিও রয়েছে অবশ্য। ভূমিতে খোদাই করা এই লাইনগুলো আদতে সাধারণ মনে হলেও, পুরো চিত্র পেতে তা দেখতে হবে উপর থেকে। নতুন চিত্রলেখাগুলোর মধ্যে কিছু নাজকা সভ্যতারও পূর্বের তোপারা ও পারাকাস সভ্যতার বলে মনে করা হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের শেষ ক্রীতদাস বোঝাই জাহাজের এক আফ্রিকানের সাক্ষাৎকার
কুদজো লুইস, পশ্চিম আফ্রিকার বেনিনে জন্ম নেওয়া এক দুর্ভাগা আফ্রিকান। মাত্র ১৯ বছর বয়সে দাহোমিয়ান উপজাতিদের হাতে বন্দী হওয়ার পর লুইসকে ক্রীতদাস হিসেবে বিক্রি করে দেওয়া হয়। শেষ পর্যন্ত তার জায়গা হয় ক্লোটিলদা নামের এক জাহাজে, যা ছিল আফ্রিকান ক্রীতদাস বোঝাই করে যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছানো শেষ জাহাজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *