নৃত্যশিল্পীদের সর্বোচ্চ সম্মাননা প্রিমা ব্যালেরিনা অ্যাবসোলিউট

আমাদের আলোচনার বিষয়বস্তু হলো প্রিমা ব্যালেরিনা আসোলিউটা (Prima ballerina assoluta)। নারী ব্যালে নৃত্যশিল্পীদের জন্য সর্বোচ্চ সম্মাননা এটি। তবে এক লাফে যেমন গাছের মগডালে চড়ে বসা যায় না, তেমনি সরাসরি আজকের এই আলোচ্য বিষয়বস্তু সম্পর্কেও পূর্ণাঙ্গ ধারণা একবারে পাওয়া সম্ভব না। তাই আমরা ধাপে ধাপে এগোবো। প্রথমে আমরা জানবো ব্যালে নৃত্য সম্পর্কে, এরপর ব্যালেরিনা সম্পর্কে, তারপর প্রিমা ব্যালেরিনা সম্পর্কে, এবং সবশেষে প্রিমা ব্যালেরিনা অ্যাসোলিউটা সম্পর্কে।

ব্যালে শব্দটির উৎপত্তি
ব্যালে শব্দটি মূলত ফরাসি ভাষার। তবে ফরাসি ভাষায় এই শব্দটির আগমন ইতালীয় ব্যালেটো শব্দ থেকে, যেটি আবার এসেছে লাতিন ভাষার শব্দ ব্যালো বা ব্যালারে থেকে। এই শব্দদ্বয়ও লাতিন ভাষার মৌলিক সৃষ্টি নয়। লাতিন ভাষায় তাদের আগমন গ্রিক ভাষার বালিজো থেকে, যার অর্থ হলো নাচা বা লাফানো। ১৬৩০ সাল থেকে নিয়মিত ইংরেজি ভাষায় ফরাসি ব্যালে শব্দটি ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

মারগট ফন্টেইন,
ব্যালে নৃত্য কী?
ব্যালে নৃত্যের ব্যাপারে কমবেশি ধারণা নিশ্চয়ই সকলেরই আছে। সামনাসামনি না হোক, টিভির পর্দায় অসংখ্যবার দেখা হয়েছে ব্যালে নৃত্য। তাই এই নৃত্যের কার্যবিধি অজ্ঞাত কোনো বিষয় নয়।

এটি হলো নৃত্য ও নৃত্যকলা কৌশলের একটি সমন্বিত রূপ, যেখানে কেবল নৃত্যই নয়, এর পাশাপাশি অভিনয়, মূকাভিনয় এবং সংগীত (কন্ঠ ও যন্ত্র) সবকিছুর সমন্বয়ে একটি স্বতন্ত্র শিল্পধারার সৃষ্টি করা হয়। এটি যেমন এককভাবে প্রদর্শিত হতে পারে, তেমনি পারে অপেরার অংশ হিসেবেও।

পঞ্চদশ শতকে ইতালীয় রেনেসাঁ চলাকালে ব্যালে নৃত্যের উদ্ভব ঘটে, এবং পরবর্তীতে ফ্রান্স ও রাশিয়ায় গিয়ে এটি কনসার্ট নৃত্যের রূপ লাভ করে। এখন গোটা জগৎজুড়ে এই নৃত্যের খ্যাতি। পশ্চিমা বিশ্বের অনেক দেশের দেখাদেখি আজকাল প্রাচ্যের অনেক দেশের স্কুলগুলোতেও প্রাথমিক স্তর থেকেই ব্যালে নৃত্য বাধ্যতামূলক শিক্ষার অঙ্গীভূত হয়েছে। অনেক দেশের সংস্কৃতিতেই এখন ব্যালে নৃত্যের নিজস্ব ঘরানার সংস্করণের উৎপত্তি ঘটেছে। এবং এই ব্যালে নৃত্য থেকে অনুপ্রাণিত হয়েই নতুন নতুন অনেক নৃত্যরূপও সৃষ্টি হয়েছে।

যেহেতু এই নৃত্যশৈলীতে অনেক বেশি শারীরিক কসরতের প্রয়োজন হয়, তাই খুব বেশি বয়স পর্যন্ত কেউ সক্রিয়ভাবে ব্যালে নৃত্যের সাথে যুক্ত থাকতে পারে না। অধিকাংশ শিল্পীই ৩৫ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে অবসর গ্রহণ করেন। ইনজুরির কারণে অনেকের ক্যারিয়ার আবার এর অনেক আগেই শেষ হয়ে যায়।

মায়া প্লিসেৎস্কায়া;
ব্যালেরিনা
ব্যালেরিনা হলো ব্যালে নৃত্যশিল্পীদের প্রাথমিক উপাধি। তবে যারা ব্যালে নৃত্য করে, তারা সবাই কিন্তু ব্যালেরিনা হয় না। সাধারণ ব্যালে নৃত্যশিল্পীদের নিছকই ব্যালে ডান্সার বলে অভিহিত করা হয়। কেবলমাত্র সেসব ব্যালে ডান্সার, যারা খুব ভালো নাচে, তারাই ব্যালেরিনা উপাধিতে ভূষিত হয়। যেকোনো ব্যালে ডান্সারেরই লক্ষ্য থাকে একসময় ব্যালেরিনা হয়ে ওঠার।

আজকালকার আধুনিক ব্যালে কোম্পানিগুলোতে অবশ্য ব্যালেরিনা উপাধির ব্যবহার প্রায় উঠে গেছে বললেই চলে। বরং সেখানে যোগ্যতার ক্রমানুসারে কয়েকটি পদ সৃষ্টি হয়েছে।

কর্পস ডি ব্যালে: ব্যালে নৃত্যগোষ্ঠীর সর্বনিম্ন পদ এটি। ব্যাকগ্রাউন্ড ডান্সারের মতো তারা দলবেঁধে মূল নৃত্যশিল্পীর পেছনে নাচতে থাকে। আলাদা করে এদের কোনো বিশেষত্ব নেই, কিন্তু এই ধরনের সকল নৃত্যশিল্পীর একই ছন্দে নেচে যাওয়া আবশ্যক।
করিফিস: কর্পস ডি ব্যালে হিসেবে মোটামুটি ভালো করলে তাদের এই পদে উত্তীর্ণ করা হয়। তখন তারা বড় দলের বাইরে এসে কয়েক মুহূর্তের জন্য একক নৃত্যশৈলী প্রদর্শনেরও সুযোগ পায়।
প্রিন্সিপাল ক্যারেক্টার আর্টিস্ট: তারা শুধু নাচেই না, পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট চরিত্রে অভিনয়েরও সুযোগ পায়।
সেকেন্ড সোলোইস্ট: তারা করিফিসদের এক ধাপ উঁচুতে অবস্থান করে। করিফিস হিসেবে ভালো করলে পরবর্তীতে তারা এই পদে এসে আরও বেশি সময়ের জন্য একক নৃত্যশৈলী প্রদর্শনের সুযোগ পায়।
ফার্স্ট সোলোইস্ট: তারা আগের পদের চেয়েও এক ধাপ এগিয়ে। এই পর্যায়ে এসে তাদের গুরুত্ব যেমন বেড়ে যায়, তেমনি দলের সর্বোচ্চ পদলাভের সম্ভাবনাও হাতছানি দিতে থাকে।
প্রিন্সিপাল ড্যান্সার: তারাই থাকে নাচের লিড রোলে। সবার সামনে থেকে তারা একক নৃত্য প্রদর্শন করে। সকল আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতেও তারাই থাকে।
প্রিন্সিপাল গেস্ট আর্টিস্ট: তারা খুবই জনপ্রিয় নৃত্যশিল্পী, এবং সামান্য সময়ের জন্য অতিথি হিসেবে এসে প্রিন্সিপাল ড্যান্সারের সাথে বা পাশাপাশি নৃত্য প্রদর্শন করে যায়। তারা সাধারণত বাইরে বা অন্য দল থেকে আসা অতিথি হয়ে থাকে।
আগে যাদেরকে ব্যালেরিনা বলা হতো, তারাই মূলত এখন প্রাতিষ্ঠানিকভাবে প্রিন্সিপাল ড্যান্সার হিসেবে পরিচিত হয়ে থাকে।

প্রিমা ব্যালেরিনা
একজন ব্যালে ডান্সার যখন ব্যালেরিনা উপাধি পেয়ে যায়, তখন তার নতুন লক্ষ্য হিসেবে আবির্ভূত হয় প্রিমা ব্যালেরিনা হওয়া। এটি যেকোনো ব্যালেরিনার জন্য সম্ভাব্য দ্বিতীয় সর্বোচ্চ খেতাব। একজন ব্যালেরিনা যখন নৃত্যশৈলী ও জনপ্রিয়তায় সমসাময়িক অন্যান্য ব্যালেরিনাদের চেয়ে অনেক এগিয়ে যায়, তখন তাকে প্রিমা ব্যালেরিনা খেতাব প্রদান করা হয়। এখন পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী ১৫২ জন ব্যালে নৃত্যশিল্পী প্রিমা ব্যালেরিনা খেতাবে ভূষিত হয়েছে। এ থেকেই বোঝা যায় কত বিরল একটি সম্মাননা এটি।

প্রিমা ব্যালেরিনা অ্যাসোলিউটা
এবং একজন ব্যালেরিনার জন্য সম্ভাব্য সবচেয়ে বড় স্বীকৃতি হলো প্রিমা ব্যালেরিনা অ্যাসোলিউটা। ব্যালে নৃত্যশিল্পীদের জন্য বিরলতম সম্মাননা এটি। যখন একজন ব্যালেরিনা পুরো একটি প্রজন্মের সেরা শিল্পীতে পরিণত হন, তখনই তাকে প্রদান করা হয় প্রিমা ব্যালেরিনা অ্যাসোলিউটা সম্মাননা। এই সম্মাননা লাভের অর্থ হলো, ব্যালেরিনা হিসেবে সেই শিল্পী সম্ভাব্য সবকিছুই জয় করে ফেলেছেন। নতুন করে তার আর অর্জনের কিছুই বাকি নেই।

এখন পর্যন্ত মাত্র ১৩ জন ব্যালেরিনা এই সম্মানে ভূষিত হয়েছেন। তবে অফিসিয়াল রেকর্ড বলছে কেবল ১১ জনের কথা। বাকি দুজনের এই সম্মাননা লাভের কথা বিভিন্ন সূত্রে শোনা গেলেও, তার পক্ষে নিরেট কোনো তথ্য-প্রমাণের সন্ধান আজ অবধি মেলেনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *