‘জয় বাংলা’ যখন এক রোগের নাম!

বিগত ৫ বছর ধরে লড়াই করছি ব্লাড ক্যান্সারের সাথে। ব্লাড ক্যান্সারের সাথেই জীবনটা বেশি উপভোগ করছি ও বেশ আনন্দে কাটাচ্ছি। তাই কিছুদিন বেশি আনন্দ করে যাবার লোভে ও পৃথিবীর না দেখা অনেক কিছু দেখে যাবার লোভে উন্নত চিকিৎসার জন্য ক’দিন পর পরই স্বেচ্ছায় বা অনিচ্ছায় ভারত গমন করতে হয়। আর সেই সুবাদে পরিচিত হয়েছি এই বিশাল দেশের সাহিত্য, সংস্কৃতি ও কৃষ্টির সাথে। পরিচিত হতে হয়েছে এ দেশের অনেক বিস্ময়কর অজানার সাথে! এসব হাজারো অজানার মধ্যে যা আমাকে সবচেয়ে বিস্মিত করেছে তা হলো পশ্চিমবঙ্গের তথা কলকাতার ‘জয় বাংলা’ রোগ। হ্যাঁ, জয় বাংলা-ই এর নাম।

এই পৃথিবীতে জয় বাংলা নামে যে কোনো রোগ থাকতে পারে তা আমার জানা ছিলো না। এপাড় বাংলায় যে ‘জয় বাংলা’ এক আবেগের স্লোগান, ওপাড় বাংলায় তা একটি রোগের নাম? অবশ্য তাই বলে এটা ভাববার কোনো সুযোগ নেই যে এর মাধ্যমে ওপাড় বাংলায় ‘জয় বাংলা’ স্লোগানের অবমাননা করা হচ্ছে। বরং এর পিছনের ইতিহাস ঘাটলে মুক্তিযুদ্ধের অনেক ইতিহাস উঠে আসবে ও যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে তদানীন্তন ভারত সরকারের এদেশের শরণার্থীদের আশ্রয়ের এক অজানা গল্প ফুটে উঠে।

বিস্ময়কর এই তথ্যের সাথে পরিচয় ২০১৪ সালে কলকাতার এক হাসপাতালে। ভারতে অবস্থানকালীন অধিকাংশ সময়ই হাসপাতালেই কাটাতে হয়। সেখানে একটা সময় হঠাৎ করেই আশেপাশে অনেকের মুখে ’জয় বাংলা’ নাম শুনতে পেলাম। কিন্তু নামটার সাথে অনেকের মুখে কেমন যেন এক আতঙ্কও বিরাজ করছিলো। বিষয়টি পরিস্কার হতে বেশি দেরি হলো না। চোখ ওঠা অর্থাৎ কনজাংটিভাইটিসকেই কলকাতা তথা পশ্চিমবঙ্গের লোকেরা ‘জয় বাংলা’ রোগ বলে থাকে। প্রথমে বিষয়টা বিশ্বাস করে উঠতে পারিনি। কিন্তু ঘটনা যে সত্য তা পুরোপুরি পরিষ্কার হয়ে যায় যখন দেখি, আনন্দ বাজার পত্রিকায় স্বাস্থ্য ও লাইফস্টাইল পাতায় ও পূজোর সময় ‘জয় বাংলা’ রোগের প্রকোপ সম্পর্কে সচেতনতামূলক কলাম ছাপিয়েছে।

কী অদ্ভুত! চোখ ওঠা রোগের নাম জয় বাংলা হয় কিভাবে? সেই উত্তর খুঁজতে গিয়েই পরিচিত হই এক অজানা ইতিহাসের সাথে। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে বাংলাদেশে কনজাংটিভাইটিস বা চোখ ওঠা রোগ মহামারির মতো ছড়িয়ে পড়ে। এই রোগে মুক্তিযোদ্ধারা ভুগেছেন, ভুগেছে পাকিস্তানি সৈন্যরা। পাকবাহিনীর ভোগান্তিটা একটু বেশি ছিল, কারণ তারা এই রোগের সাথে পরিচিত ছিল না। অনাকাঙ্খিত এই মহামারি কোনো কোনো ক্ষেত্রে ট্যাকটিক্যালি গেরিলা যোদ্ধাদের কিছুটা সুবিধা এনে দিয়েছিল। মুক্তিযোদ্ধারা চোখ ওঠা রোগকে মজা করে বলতেন ‘জয় বাংলা রোগ’। এমনকি সীমান্তের ওপারে যেসব অস্থায়ী হাসপাতালে আহত ও অসুস্থ মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা দেয়া হত, সেখানকার ডাক্তাররাও কনজাংটিভাইটিসকে বলতেন ’জয় বাংলা রোগ’।

১৯৭১ সালে মহামারী আকারে এই রোগ পশ্চিম বাংলায় ছড়িয়ে পড়েছিলো। রোগটি পূর্ব বাংলায় চলা মুক্তিযুদ্ধের কারণে সীমান্ত পেরিয়ে চলে আসা বাঙালি শরণার্থীদের কারণেই ছড়িয়েছিলো বলে এর নাম দেয়া হয় ‘জয় বাংলা’ রোগ!

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে পশ্চিমবঙ্গে আশ্রয় নেয়া শরণার্থীরা; image source: blogs.bodleian.ox.ac.uk
আহমদ ছফা ‘অলাতচক্র’ উপন্যাসে লিখেছেন,
“কলকাতা শহরের লোকদের মুখে ইদানিং (১৯৭১) ‘জয় বাংলা’ শব্দটি শুনলে আমার অস্তিত্বটা যেন কুঁকড়ে আসতে চায়। শেয়ালদার মোড়ে মোড়ে সবচে সস্তা, সবচে ঠুনকো স্পঞ্জের স্যান্ডেলের নাম ‘জয় বাংলা’ স্যান্ডেল।… যে চোখ-ওঠা রোগটি ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছিল, কলকাতার মানুষ মমতাবশত তারও নামকরণ করেছিল ‘জয় বাংলা’।”
অবশ্য একাত্তরের উত্তাল দিনগুলোতে পশ্চিমবঙ্গে বিভিন্ন পণ্যসামগ্রীকে নাকি ‘জয় বাংলা’ নামে নামকরণের একটি ফ্যাশন শুরু হয়েছিল। আহমদ ছফা তার অলাতচক্র উপন্যাসে লিখেছেন,
“শেয়ালদার মোড়ে মোড়ে সবচে সস্তা, সবচে ঠুনকো স্পঞ্জের স্যান্ডেলের নাম জয়বাংলা স্যান্ডেল। এক হপ্তার মধ্যে যে গেঞ্জি শরীরের মায়া ত্যাগ করে তার নাম জয়বাংলা গেঞ্জি। জয়বাংলা সাবান, জয়বাংলা ছাতা কতকিছু জিনিস বাজারে বাজারে ছেড়েছে কলকাতার ব্যবসায়ীরা। দামে সস্তা, টেকার বেলায়ও তেমন। বাংলাদেশের উদ্বাস্তুদের ট্যাঁকের দিকে নজর রেখে এ সকল পণ্য বাজারে ছাড়া হয়েছে।”

১৯৭১ সালে এই ‘চোখ ওঠা’ রোগ মহামারী আকার ধারণ করেছিলো। তাই ’জয় বাংলা’ একাত্তরে পশ্চিমবঙ্গের সাধারণ লোকজনের কাছে আবেগের পাশাপাশি হয়ে উঠলো এক আতঙ্কের নাম। মূলত এটি ছিল চোখের কনজাংটিভার প্রদাহ বা চোখ-ওঠা। এই এএইচসি ‘চোখ ওঠা’ বা কনজাঙ্কটিভাইটিস-এর মধ্যে সবচেয়ে ক্ষতিকর ভ্যারাইটি। একদিকে পশ্চিমবঙ্গের মানুষেরা ‘জয় বাংলা’র সহায়তায় নিজেদের সব কিছু নিয়ে এগিয়ে এসেছিল, অন্যদিকে ‘জয় বাংলা’র মতো চোখের অসুখে বিপর্যস্ত হয়েছিল দৈনন্দিন জীবন। ‘জয় বাংলা’র প্রকোপ ছিলো এতটাই, যে সেসময় ৫০ লাখেরও বেশি লোক এই রোগে ভুগেছেন। তখনকার পত্রিকাগুলোর সংবাদ ঘাঁটলে এই সংখ্যা আরও বেশি বলেই জানা যায়।

এই রোগ কল্যাণী, চাপড়ার বড় আন্দুলিয়া, বেতাই, করিমপুর, শিকারপুর শরণার্থী শিবিরে ছড়িয়ে পড়ে। একসময় এটি আক্রমণ করে কলকাতা শহরের শিবিরগুলোর শরণার্থীদেরও।

আক্রান্তদের মধ্যে শরণার্থীরা যেমন ছিলেন, তেমনি সংক্রামক এই রোগের দ্বারা আক্রান্ত হয়েছিলেন স্থানীয় অধিবাসীরাও। ১৯৭১ সালের মার্চ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সরকারি হিসাবমতে প্রায় ৫ লাখ লোক অ্যাকিউট হেমোরেগেজিং কনজাঙ্কটিভাইটিস এর চিকিৎসাসেবা নেন। কলকাতা শহরের শতকরা ৬৫ জন লোক এই রোগে আক্রান্ত হন বলে জানিয়েছিলেন জর্জ চাইল্ডস কোন তার ‘Encyclopedia of plague and pestilence: From Ancient Times to the Present’ গ্রন্থে। তার এই গ্রন্থে একাত্তরে পশ্চিমবঙ্গে পঞ্চাশ লক্ষ লোক চোখ-ওঠায় আক্রান্ত হন বলে উল্লেখ করেন।

একাত্তরে জয় বাংলায় তথা চোখ ওঠায় পশ্চিমবঙ্গ কতটা বিপর্যস্ত হয়েছিল ৪ জুন ১৯৭১ এর দৈনিক যুগান্তরের একটি শিরোনামে তা স্পষ্ট। ‘চোখের রোগে ট্রেন বন্ধের আশঙ্কা’ শিরোনামের রিপোর্টে বলা হচ্ছে,
“চোখ-ওঠায় রেলওয়ের বিপুলসংখ্যক কর্মী আক্রান্ত হয়েছেন। পূর্ব রেলের শিয়ালদহ ডিভিশনের ৪৯ জন গার্ড এই রোগে আক্রান্ত হয়ে ছুটি নিয়েছেন। বহুসংখ্যক বুকিং ক্লার্ক চোখের রোগে আক্রান্ত। সাধারণ ছুটিতে থাকা ২৭ কর্মীর ছুটি বাতিল করেও ট্রেন-চলাচল অসম্ভব হয়ে পড়েছে।“

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *